বাংলাদেশে প্রথম ট্যুরিজম ভিত্তিক নিউজ পোর্টাল|শুক্রবার, অক্টোবর ১৫, ২০২১
সাইটে আপনার অবস্থানঃ Home » খেলা » গেইলকে ‘অটোচয়েস’ হিসেবে বিশ্বকাপ দলে নেওয়া উচিত হয়নি!

গেইলকে ‘অটোচয়েস’ হিসেবে বিশ্বকাপ দলে নেওয়া উচিত হয়নি! 

Print Friendly, PDF & Email

193121gayle

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের অবিসংবাদিত ‘ইউনিভার্স বস’ ক্রিস গেইল। বিধ্বংসী এই ক্রিকেটারকে নিয়েই আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দল সাজিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গেইল ছাড়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চিন্তা করাটাও অনেকের জন্য কঠিন। ক্যারিবীয়দের জন্য তো বটেই। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবকে পেসার স্যার কার্টলি অ্যামব্রোস এবং কেনি বেঞ্জামিন মনে করেন, গেইলকে অটোচয়েস হিসেবে বিশ্বকাপ দলে নেওয়া ঠিক হয়নি!

গেইল গত পাঁচ বছরে টি-টোয়েন্টিতে মাত্র একটি হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন। এই সময়ে তার গড় রান ছিল ২০-এর কম। গত মাসে শেষ হওয়া ক্যারিবীয়ান প্রিমিয়ার লিগে ৯ ম্যাচে ১৮.৩৩ গড়ে মাত্র ১৬৫ রান করেন গেইল। ওই আসরে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল গেইলের দল সেন্ট কিটস ও নেভিস প্যাট্রিয়স। আইপিএলের সংযুক্ত আরব আমিরাত পর্বে পাঞ্জাব কিংসের পাঁচ ম্যাচের মধ্যে মাত্র দু’টিতে খেলার সুযোগ পান গেইল। ব্যাট হাতে করেন ১৪ ও ১ রান।

টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ফোকাস করতে গেইল আর আইপিএলের বাকি অংশে খেলছেন না। অ্যামব্রোসের মতে, এক সময়ের ভয়ংকর গেইল গত ১৮ মাস ধরে এই ফরম্যাটে নিজেকে মেলে ধরতে পারছেন না। তার ভাষায়, ‘গেইল আমার কাছে অটোচয়েস নয়। সে হাতেগোনা কয়েকটি হোম সিরিজ খেলেছে। বড় কোনো স্কোরও করতে পারেনি। আমি এর আগেও বলেছি, সে যদি হোম সিরিজে ভালো না করে, তাহলে তার বিশ্বকাপে যাওয়া উচিত নয়। সে বিধ্বংসী হতে পারে। কিন্তু গত ১৮ মাসে বেশি কিছু করেনি। তাই সে বিশ্বকাপে জ্বলে উঠবে- এমনটা আমি ভাবতে পারছি না।’

বেঞ্জামিনও অ্যামব্রোসের সুরে সুর মিলিয়ে বলেন, ‘আমার কাছেও সে অটোচয়েস নয়। আপনি আমাদের দলের দিকে তাকান, লুইস এবং সিমন্স আছে। এই ছেলেরা গত কয়েকটি ম্যাচে দারুন পারফরমেন্স করেছে। আমাদের সেরা দল নিয়ে খেলতে হবে। দিনের শেষে ম্যাচের আগে আমাদের সেরা একাদশটাই নির্বাচন করতে হবে। ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি সে শুরুতে ব্যাটিং না করে, তবে সে তিন নম্বরে ব্যাটিং করতে পারে। ওপেনিংয়ের বাইরে তার জন্য তিন নম্বর উপযুক্ত।

দুবাইয়ে আগামী ২৩ অক্টোবর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শিরোপা ধরে রাখার মিশন শুরু করবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২০১৬ সালের ফাইনালে এই ইংল্যান্ডকে হারিয়েই তারা শিরোপা জিতেছিল। বেঞ্জামিন আরও বলেন, ‘আমাদের মনে রাখতে হবে, যারা গেইলের বিপক্ষে খেলছে, তারা অবশ্যই গেইলকে নিয়ে হোমওয়ার্ক করছে। তারা গেইলকে আরও ক্ষুধার্ত করে তুলবে। সবসময় প্রতিপক্ষ চেষ্টা করবে গেইলকে বড় শট নিতে না দেওয়ার। তাই আমাদেরকে তার সেরাটার জন্য সহায়তা করতে হবে। তাকে নতুন বল মোকাবেলা করতে হবে। একবার সে জ্বলে উঠলে, অনেক দূর যেতে পারে।’

শেয়ার করুন !!Share on FacebookTweet about this on TwitterShare on Google+Share on LinkedInShare on RedditBuffer this pageDigg thisShare on TumblrPin on PinterestShare on StumbleUponFlattr the authorEmail this to someone