বাংলাদেশে প্রথম ট্যুরিজম ভিত্তিক নিউজ পোর্টাল|বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২, ২০২১
সাইটে আপনার অবস্থানঃ Home » পর্যটন » অপরূপ নিঝুম দ্বীপ

অপরূপ নিঝুম দ্বীপ 

নিঝুম-দ্বীপ
Print Friendly, PDF & Email

সমুদ্র কোলে অস্তগামী সূর্য। কেওড়া বন থেকে দল বেঁধে ঘাস বনে ছুটে আসছে মায়াবী চিত্রা হরিণ। দূর বালুচরে চিকচিক খেলা করছে মিষ্টি সূর্য রশ্মি। কেওড়া, গেওড়া বনের কোলঘেঁষে বয়ে যাওয়া সরু খালের পাড়ে সবুজের আচ্ছাদিত নক্‌শিকাঁথার মাঠ। বনে পাখির কিচিরমিচির। শীতের বিকালে প্রকৃতির এমন মায়াবীরূপ উপভোগ করা যায় নিজুম দ্বীপে। বঙ্গোপসাগরের কোলে উত্তর ও পশ্চিমে মেঘনার শাখা নদী, আর দক্ষিণ এবং পূর্বে সৈকত ও সমুদ্র বালুচরবেষ্টিত ছোট সবুজ ভূখণ্ড নিঝুম দ্বীপ এখন পর্যটকদের জন্য এক আকর্ষণীয় স্থান। নোয়াখালী জেলার দক্ষিণাংশে হাতিয়া উপজেলায় বঙ্গোপসাগরের মোহনায় জেগে ওঠা ছোট্ট দ্বীপ- নিঝুম দ্বীপ। নিঝুম দ্বীপের পূর্ব নাম ছিল চর-ওসমান। ওসমান নামের একজন বাথানিয়া তার মহিষের বাথান নিয়ে প্রথম নিঝুম দ্বীপে বসত গড়েন। তখন এই নামেই এর নামকরণ হয়েছিল। পরে হাতিয়ার সংসদ সদস্য আমিরুল ইসলাম কালাম এই নাম বদলে নিঝুম দ্বীপ নামকরণ করেন। একে দ্বীপ বলা হলেও এটি মূলত একটি চর। বল্লারচর, চর ওসমান, কামলার চর এবং চুর মুরি- এই চারটি চর মিলিয়ে নিঝুম দ্বীপ।

1624240218

১৪,০৫০ একরের দ্বীপটি ১৯৫০ খ্রিস্টাব্দের দিকে জেগে ওঠে। ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দের আগ পর্যন্ত কোনো লোকবসতি ছিল না। বাংলাদেশের বনবিভাগ ৭০-এর দশকে বন বিভাগের কার্যক্রম শুরু করে। প্রথমে পরীক্ষামূলকভাবে চার জোড়া হরিণ ছাড়ে। নিঝুম দ্বীপ এখন হরিণের অভয়ারণ্য। ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দের হরিণশুমারি অনুযায়ী হরিণের সংখ্যা ২২ হাজার। নিঝুম দ্বীপে এখন হরিণের সংখ্যা ৪০ হাজাররের মত। নোনা পানিতে বেষ্টিত নিঝুম দ্বীপ কেওড়া গাছ। ম্যানগ্রোভ বনের মধ্যে সুন্দরবনের পরে নিঝুম দ্বীপকে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন বলে অনেকে দাবি করেন।

 

13340266_1024476680921436_4940545094989805592_o

বর্ষায় মন জুড়িয়ে যাবে নিঝুম দ্বীপে বাতাস আর তেড়ে আসা বড় বড় ঢেউয়ে। নির্জন সুবিশাল ম্যানগ্রোভ বন মুহূর্তে মন ভালো করে দেবে। শীত মৌসুমে পর্যটকরা অভিযোগ করে থাকেন যে, হরিণ দেখতে তাদের বনের ভিতর অনেক দূর হাঁটতে হয়। কিন্তু বর্ষায় হরিণ একবারে হাতের কাছে। শীত মৌসুমে পর্যটকদের পদচারণা বেশি থাকায় হরিণ গভীর বনে চলে যায়। নিঝুম দ্বীপে রয়েছে প্রায় ৩৫ প্রজাতির পাখি। এছাড়াও শীতের মৌসুমে অজস্র প্রজাতির অতিথির পাখির অভয়ারণ্যে পরিণত হয় নিঝুম দ্বীপ। নিঝুম দ্বীপে বিশাল এলাকা পলিমাটির চর। জোয়ারের পানিতে ডুবে এবং ভাটা পড়লে শুঁকোয়। জোয়ারের পানিতে বয়ে আসা বিভিন্ন প্রজাতির মাছ এদের একমাত্র খাবার। এখানে রয়েছে মারসৃপারি নামে একধরনের মাছ যাদেরকে উভচর প্রাণী বলা হয়। ৫ বছর পর্যন্ত বাঁচে এই মারসৃপার, ৬-৯ ইঞ্চি লম্বা হয়। বর্ষা মৌসুমে ইলিশের জন্য নিঝুম দ্বীপ বিখ্যাত। এই সময় ঢাকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের পাইকাররা নিঝুম দ্বীপে মাছ কিনতে আসে।। এছাড়া শীত কিংবা শীতের পরবর্তী মৌসুমে নিঝুম দ্বীপ চেঁউয়া মাছের জন্য বিখ্যাত। জেলেরা এই মাছ ধরে শুঁটকি তৈরি করেন।

12324988

ঢাকা থেকে নিঝুম দ্বীপ যাওয়ার সহজ রুটটি হলো- সদরঘাট থেকে লঞ্চে হাতিয়ার তমরুদ্দি। তমরুদ্দি ঘাট থেকে হোন্ডা যোগে মোক্তারিয়া। মোক্তারিয়া ঘাট থেকে খেয়া পার হয়ে নিঝুম দ্বীপ ঘাট। এখান থেকে হোন্ডা যোগে নামার বাজার । এছাডা বাসে করে নিঝুম দ্বীপ যেতে পারেন।

যারা উচ্ছাস উচ্ছলতা আর রোমাঞ্চে জীবনকে অর্থবহ করতে চান তারা নিঝুম দ্বীপকে ঘিরে, সে আশা ষোল কলা পূর্ণ করতে পারেন। শীত মৌসুমে সাগর শান্ত থাকলেও বছরের যেকোন সময় এখানে আসা যায় এপ্রিল থেকে সাগর ধীরে ধীরে অশান্ত বা গরম হতে থাকে। তখন ঢেউয়ের উচ্চতাও বৃদ্ধি পায়। ট্রলারেসে তরঙ্গ বিক্ষুদ্ধ সাগর পাড়ি দিতে প্রয়োজন পড়ে সাহসের। সে সময় এক রোমাঞ্চ অভিজ্ঞতায় দুধর্ষ অভিযাত্রীর মত মনে হবে নিজেকে। উদ্দাম ঢেউয়ে ছিটকে আসা সমুদ্রের লোনা জল পুলকিত হবে হৃদয়। এ সময় সমুদ্র পাড়ি হবে জীবনের রোমাঞ্চকর হৃত-কাঁপানো অভিজ্ঞতা। হরিণ এবং মহিষ ছাড়া অন্য কোনো হিংস্র প্রাণী নেই। শীত মৌসুমে অতিথি পাখির অভয়ারণ্যে পরিণত হয় নিঝুম দ্বীপ।

 

 

শেয়ার করুন !!Share on FacebookTweet about this on TwitterShare on Google+Share on LinkedInShare on RedditBuffer this pageDigg thisShare on TumblrPin on PinterestShare on StumbleUponFlattr the authorEmail this to someone