বাংলাদেশে প্রথম ট্যুরিজম ভিত্তিক নিউজ পোর্টাল|রবিবার, জানুয়ারি ২৩, ২০২২
সাইটে আপনার অবস্থানঃ Home » পর্যটন » নয়নাভিরাম সৌন্দর্য্য নিঝুম দ্বীপ

নয়নাভিরাম সৌন্দর্য্য নিঝুম দ্বীপ 

4030
Print Friendly, PDF & Email

এইদেশ এইসময়, ডেস্ক : নয়নাভিরাম সৌন্দর্য্য, প্রাকৃতিক সম্পদ আর অপার সম্ভাবনায় সমৃদ্ধ বঙ্গোপসাগরের কোলঘেঁষে জেগে ওঠা দ্বীপ নিঝুমদ্বীপ। একদিকে তার বঙ্গোপসাগরের উত্তাল তরঙ্গ, অন্যদিকে ছুটে আসা হিমেল হাওয়া আর সবুজের সুবিশাল ক্যানভাস দ্বীপটিকে দিয়েছে ভিন্ন এক রূপ বৈচিত্র্য।

১৯৫০ সালের দিকে প্রায় ১৪,০৫০ একর এলাকা জুড়ে জেগে ওঠে দ্বীপটি। ওসমান নামের এক লোক প্রথম এই দ্বীপে বসতি স্থাপন করে। যে কারণে এই দ্বীপটিকে স্থানীয়রা ‘ওসমানের চর’ নামেও ডাকে। প্রায় ৬৩ বর্গমাইল আয়তনের এ দ্বীপটি হাতিয়ার মূল ভূখন্ড থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত।

১৯৭০ সালের দিকে নিঝুম দ্বীপে স্থায়ীভাবে মানুষ বসবাস শুরু করে। যদিও ১৯৯৬ সালে ভ্রমন পিপাসু মানুষের কথা মাথায় রেখে একে জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা করা হয়। শুধু বাংলাদেশ নয়, বহির্বিশ্বের মানুষেরও এই দ্বীপটি নিয়ে আছে সীমাহীন কৌতুহল। যেমন কৌতুহল দ্বীপটির নাম নিয়ে তেমনি এখানকার প্রাকৃতিক পরিবেশ, মানুষের জীবনযাত্রা আর সর্বোপরি হরিনের অভয়ারণ্য হিসেবে ইতোমধ্যেই বিশ্বমানচিত্রে জায়গা করে নিয়েছে দ্বীপটি।

শীতের সময় হাজার হাজার অতিথি পাখি এ দ্বীপে এসে আশ্রয় নেয়। এসময় নিঝুমদ্বীপের মানুষের ঘুম ভাঙ্গে হরেক রঙ্গের পাখ-পাখালীর গানে। তাই বলে এ দ্বীপের কোন মানুষ পশু-পখি শিকার করে না। এমনকি বাহির থেকে কেউ এখানে এসে পশু পাখি শিকার করতে পারে না।

দ্বীপটির আইন শৃংখলা রক্ষার্থে একটি স্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প রয়েছে। দ্বীপের মধ্যে মোট ৪ টি বাজার রয়েছে। এছাড়া রয়েছে ৪টি ঘূর্নিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র।

যেভাবে যাবেন: রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে নোয়াখালীর বাসে জেলা শহর মাইজদী এসে নামতে হবে। চেয়ার কোচ, বিলাস অথবা একুশে পরিবহনে ভাড়া পড়তে পারে ৩২০ টাকা। পথে জ্যাম না থাকলে সময় লাগবে ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা।

মাইজদী এসে জেনে নিতে হবে বয়ারচর চেয়ারম্যান ঘাট থেকে হাতিয়ার সি-ট্রাক ছাড়ার সময়। এদিন মাইজদী রাত্রিযাপন করতে হবে। এখানে রয়েছে অনেকগুলো মধ্যমানের আবাসিক হোটেল। হোটেল গুলোর ভাড়া ৭৫ থেকে ১৫০টাকার মধ্যে। এছাড়া অনুমতি নিয়ে থাকা যাবে সার্কিট হাইজ, বনবিভাগ ও জেলা পরিষদের উন্নতমানের সরকারি ডাক বাংলোতে।

আর একই দিন হাতিয়ায় যাত্রা করতে হলে মাইজদী থেকে বেবী ট্যাক্সীতে যেতে হবে বয়ারচর চেয়ারম্যান ঘাট। ভাড়া রিজার্ভ ৫০০ টাকা। এ ছাড়া অন্যদের সঙ্গে যেতে ভাড়া ১০০ টাকা। তারপর সি-ট্রাকে হাতিয়ার নলচিরাঘাট পর্যন্ত। ভাড়া পড়বে ৫৫টাকা। সময় লাগবে ২ ঘণ্টার মতো। সেখান থেকে আবার বেবি ট্যাক্সি, টেম্পো অথবা বাসে যেতে হবে ওছখালীস্থ্য উপজেলা সদরে। ভাড়া সর্বোচ্চ ৬০ টাকার মধ্যে হয়ে যাবে। সময় লাগবে আধা ঘণ্টার মতো। এছাড়া ঢাকা থেকে প্রতিদিন বিকেল ৫টায় একটি তিনতলা বিশিষ্ট লঞ্চ এমভি টিপু-৫ ও পানামা ছাড়ে পরদিন সকালে হাতিয়া এসে পৌছায়। ভাড়া কেবিন ১২০০ টাকা।

এরপর হাতিয়া উপজেলা সদরে রাত যাপন করতে হবে। এর জন্য রয়েছে উপজেলা পরিষদের সরকারি ডাকবাংলো, আবাসিক হোটেল ও দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার উন্নতমানের রেস্ট হাউজ। ভাড়া আবাসিক হোটেলগুলোতে ৩০০ টাকার বেশী হবে না। আর দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার রুমে ৫০০ টাকার মতো। পরদিন ভোরে বেবি ট্যাক্সিতে যেতে হবে জাহাজমারা হয়ে মোক্তারিয়া ঘাটে। ভাড়া রিজার্ভ ট্যাক্সি ২৫০টাকা। সময় লাগবে এক ঘণ্টার চেয়ে একটু বেশি। তবে খুব ভোরে বেবি-টেক্সি পাওয়া নিশ্চিত হওয়ার জন্য আগের দিন রাতে বলে রাখা ভালো।

এবার মোক্তাইরা ঘাট থেকে ট্রলারে ১০ মিনিটের পথ ফেরিয়ে নিঝুমদ্বীপে পৌঁছানো যায় প্রতি ১ঘণ্টা পর ট্রলার এপার ওপার যাওয়া আসা করে। ভাড়া ১৫ টাকা। বিকেল ৫ টা পর্যন্ত চলে এভাবে। কেউ চাইলেই ঐদিনই হাতিয়া ফিরে আসতে পারেন। দ্বীপের চার পাশ ও বনের মধ্যে দেখার জন্য ট্রলার রিজার্ভ করে যাওয়ায় ভালো। সে ক্ষেত্রে ভাড়া পড়বে ৫০০ টাকার মতো। নিঝুমদ্বীপে ব্যক্তি মালিকানায় হোটেল, জেলা পরিষদ, রেড় ক্রিসেন্ট ও বন বিভগের ৫ টি বাংলোয় যে কেউ থাকতে পারেন। খাওয়ার জন্য নিঝুমদ্বীপে রয়েছে ছোট ছোট বেশ কয়েকটি হোটেল। খাওয়ার হোটেলগুলো দেখতে খুব একটা পরিপাটি না মনে হলেও এগুলোয় খাওয়ার মান বেশ ভলো। এসব হোটেলে সাধারণ দ্বীপের জেলেদের ধরা তাজা মাছ পাওয়া যায়।

শীতের মৌসুমই হচ্ছে নিঝুম দ্বীপ ভ্রমণের সবচেয়ে ভালো সময়। কারণ এ সময় সাগর শান্ত থাকে। আর সঙ্গে কিন্তু ক্যামেরা নিতে ভুলবেন না

শেয়ার করুন !!Share on FacebookTweet about this on TwitterShare on Google+Share on LinkedInShare on RedditBuffer this pageDigg thisShare on TumblrPin on PinterestShare on StumbleUponFlattr the authorEmail this to someone